2

কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেসে নিজের থিমে রিডাক্স ফ্রেমওয়ার্ক যোগ করব?

Screen Shot 2014-07-16 at 10.14.36 PM
ওয়ার্ডপ্রেসের যতগুলো অ্যাডমিন প্যানেল বা অপশন ফ্রেমওয়ার্ক আছে তাদের মাঝে রিডাক্স অন্যতম। অনেকগুলো চমৎকার ফিচার, প্রচুর ফিল্ডের সমারোহ এবং সহজ ব্যবহারোপযোগিতার কারনে রিডাক্স খুব দ্রুতই ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভেলপার দের দৃষ্টি আকর্ষন করতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়াও রিডাক্সে ডেভেলপাররা ক্রমাগত এটাকে আপডেট করে চলেছেন, যার ফলে আমরা মাঝেমাঝেই পাচ্ছি নিত্য নতুন ফিচার। আজকের এই আর্টিকেলে আমি দেখাবো কিভাবে আমরা আমাদের থিমে এই রিডাক্স ফ্রেমওয়ার্ক দিয়ে তৈরী অপশন প্যানেল যোগ করব

১. এজন্য প্রথমেই https://github.com/ReduxFramework/ReduxFramework/ এখানে ডানদিকের নিচে গিয়ে “Download zip” বাটনে ক্লিক করে রিডাক্স ফ্রেমওয়ার্ক ডাউনলোড করে নিন

২. ডাউনলোড করা জিপ ফাইলটি আনজিপ/এক্সট্রাক্ট করলে redux-framework-master নামে একটা ফোল্ডার পাবেন। সেটা ওপেন করে একমাত্র ReduxCore এবং sample নামের ফোল্ডার দুটো রাখুন, আর class.redux-plugin.php, index.php, license.txt, redux-framework.php নামের ফাইলগুলো রেখে বাকি সবকিছু ডিলেট করে দিন। ডিলেট করার পরে redux-framework-master ফোল্ডার এর কনটেন্ট হবে নিচের মত

Screen Shot 2014-07-16 at 9.47.41 PM

৩. এবার আপনার থিমে libs নামে একটা ডিরেক্টরী তৈরী করে তার ভেতরে এই redux-framework-master ফোল্ডার পেস্ট করে দিন।

৪. এবার আপনার থিমের functions.php ফাইলে নিচের কোড টুকু যোগ করুন

if(!class_exists("ReduxFrameworkPlugin")){
    require_once(get_template_directory()."/libs/redux-framework-master/redux-framework.php");
    require_once(get_template_directory()."/libs/redux-framework-master/sample/sample-config.php");
}

৫. এবার আপনার থিম অ্যাক্টিভেট করে ওয়ার্ডপ্রেস এর অ্যাডমিন প্যানেলে আসলেই বামপাশে দেখবেন “Sample Options” নামে একটা মেনু চলে এসেছে, যা আসলে রিডাক্সের স্যাম্পল ফাইল টির আউটপুট।

Screen Shot 2014-07-16 at 9.58.57 PM

ব্যাস, আমাদের থিমে রিডাক্স ফ্রেমওয়ার্ক যোগ করা শেষ। একদম সহজ, তাই না? এখন আপনি sample-config.php ফাইলটি স্টাডি করে দেখতে পারেন কিভাবে বিভিন্ন ধরনের ফিল্ড যোগ করা হয়েছে। লাইন নম্বর ২৩৯ থেকে এই সেকশন এবং ফিল্ড গুলোর ডেফিনিশন শুরু হয়েছে। এখন একটা বিষয় খুবই জরুরী, আর সেটা হল এই যে আমাদের থিমের ইউজার রা রিডাক্সের সাহায্যে বিভিন্ন ডেটা ইনপুট দিবে – আমরা সেগুলো থিমে ব্যবহার করব কিভাবে। এর জন্য আমাদের দেখতে হবে ১৫৩৫ নম্বর লাইনে (বর্তমান আপডেট অনুযায়ী) এই লাইনটি আছে

'opt_name'          => 'redux_demo', 

এখানে আপনি আপনার পছন্দ মতো ভ্যারিয়েবলের নাম লিখতে পারবেন। যেমন আপনার থিমের নাম যদি হয় FlyHigh তাহলে আপনি লিখতে পারেন

'opt_name'          => 'flyhigh',

এটা করা হয়ে গেলে আপনার থিমের ফাইলে সবার উপরে এই লাইনটি লিখবেন

global $flyhigh;

এর পর থেকে রিডাক্সের যেকোন ফিল্ডের ডেটা আপনি অ্যাক্সেস করতে পারবেন $flyhigh['fieldid'] এইভাবে। ফিল্ডের আইডি কিভাবে লিখতে হয় এটা জানতে হলে আপনি স্যাম্পল কনফিগ ফাইলে অনেক উদাহরণ পাবেন, যেমন ধরুন একটা ফিল্ডের ডেফিনিশন হল

array(
    'id'        =>  'my_text_field',
    'type'      =>  'text',
    'desc'      =>  'Add some awesome text here',
    'default'   =>  'Oh WOW!',
    'title'     =>  'My Awesome Text'

),

উপরের উদাহরণে ফিল্ডের আইডি হল my_text_field। আরেকটা জিনিশ, সেটা হল যে “Sample Options” নামের মেনুর নাম পরিবর্তন করতে চাইলে নিচের লাইনটি খুঁজে বের করে আপনার পছন্দ মত মেনু নাম দিন

'menu_title'        => __('Sample Options', 'redux-framework-demo'),

এই স্যাম্পল ফাইলটি আপনার জানার সুবিধার্থে রিডাক্স টিম করে দিয়েছে। এই ফাইলে পরিবর্তন না করে বরং একই ফোল্ডারে দেখবেন barebones-config.php নামে আরেকটা ফাইল রয়েছে, যেটাতে শুধু যেটুকু দরকার সেটুকুই কোড আছে। আপনি সেই ফাইলটি আপনার থিমের কোথাও কপি করে নিয়ে আপনার থিমের জন্য নিজের মত করে অ্যাডমিন প্যানেল বানাতে পারবেন।

আশাকরি আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগেছে। তারপরেও মন্তব্যে জানালে খুশি হব :)

2

গাল্প দিয়ে এক মিনিটে ওয়েব সার্ভার তৈরী করা

Screen Shot 2014-07-04 at 5.58.23 PM
গাল্প মূলত নোডজেএস এর উপরে বানানো একটি টাস্ক অটোমেশন টুল, যেটা দিয়ে আপনারা অনেক সহজেই বিভিন্ন বোরিং এবং একঘেয়ে কাজ অটোমেট করে ফেলতে পারবেন। এটা দিয়ে একদিকে যেমন অনেক সময় বাঁচানো যায় আরেকদিকে প্রজেক্টের টাস্ক গুলো অটোমেট করার মাধ্যমে অনেক স্মার্ট ভাবে ম্যানেজ করা যায়। গাল্প আসার আগে বেশির ভাগ লোকজন গ্রান্ট দিয়ে টাস্ক অটোমেশনের কাজ সারতো। কিন্তু গ্রান্ট এর লার্নিং কার্ভ অনেক স্টিপ, অর্থাৎ আয়ত্ত্ব করতে বেশ ভালো সময় লাগে। অন্যদিকে গাল্প একেবারেই ছোট্ট এবং শেখাও খুব সহজ, পাশাপাশি গাল্প অনেক ফাস্ট। তো চলুন আজকে আমরা দেখি কিভাবে আমরা গাল্পের সাহায্যে একটা ওয়েব সার্ভার তৈরী করে আমাদের স্ট্যাটিক কনটেন্ট সার্ভ করতে পারি। এটা স্ট্যাটিক সাইট ডেভেলপমেন্টের সময় খুব কাজে লাগে, আলাদা ভাবে ভার্চুয়াল হোস্ট তৈরী করার সময় টুকুও বাঁচানো যায়।

প্রথমে একটি আলাদা ফোল্ডার তৈরী করুন অথবা আপনার প্রজেক্টের ফোল্ডারে আসুন, এবার নিচের মত করে টার্মিনালে কমান্ড লিখুন অথবা package.json নামে একটি ফাইল তৈরী করুন যার কনটেন্ট হবে {}

Screen Shot 2014-07-04 at 5.37.03 PM

আপনার যদি নোডজেএস ইনস্টল না করা থাকে তাহলে http://nodejs.org/ এখানে গিয়ে নোডজেএস নামিয়ে ইনস্টল করে ফেলুন।

Screen Shot 2014-07-04 at 5.39.46 PM

 

এবার টার্মিনালে কমান্ড দিন নিচের মত করে। ওয়েব সার্ভার তৈরীর জন্য আমাদের গাল্পের বেজ প্যাকেজ এবং gulp-connect নামক প্যাকেজটি লাগবে।

npm install gulp --save-dev 
npm install gulp-connect --save-dev 

কিছুক্ষনের মাঝেই দেখবেন যে গাল্প এবং গাল্প কানেক্ট ইনস্টল হয়ে গেছে।

Screen Shot 2014-07-04 at 5.44.20 PM

এবার এই ফোল্ডারেই একটা নতুন ফাইল তৈরী করুন gulpfile.js যার কনটেন্ট হবে নিচের মত, পোর্ট নাম্বারের জায়গায় আপনার পছন্দ মত পোর্ট নাম্বার দিতে পারেন।

var gulp = require("gulp"),
    connect = require("gulp-connect");

gulp.task("server",function(){
    connect.server({
        port:8081
    });
});

gulp.task("default",["server"]);

এবার একটা index.html ফাইল তৈরী করুন, নিচের মত – অথবা আপনার যা ইচ্ছা তাই লিখুন

<!DOCTYPE html>
<html>
<head>
    <title>Hello World</title>
</head>
<body>
<h1>Hello World</h1>
</body>
</html>

এবার টার্মিনালে কমান্ড দিন gulp, কমান্ড দেয়া হলে আপনার ব্রাউজারে ব্রাউজ করুন http:/localhost:8081 ( অথবা gulpfile.js এ যেই পোর্ট নম্বর দিয়েছিলেন, সেটা)

Screen Shot 2014-07-04 at 5.51.38 PM

ব্রাউজারে আপনার ইনডেক্স ফাইলটি (index.html) চলে এসেছে। অনেক সহজ, তাই না?

ওহ এখানে উল্লেখ্য যে আপনি প্রজেক্টে যদি গিট ( git ) ব্যবহার করেন, তাহলে এই নোডজেএস এর ফাইলগুলো গিটইগনোর (.gitignore) ফাইলের মাধ্যমে গিটে কমিট বা পুশ হওয়া থেকে বিরত রাখতে পারেন। এজন্য আপনার ফোল্ডারে/প্রজেক্ট-রুটে একটা ফাইল তৈরী করুন .gitignore নামে যার কনটেন্ট হবে নিচের মত

node_modules
gulpfile.js
package.json

আশাকরি গাল্প নিয়ে এই আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগেছে। পরবর্তীতে গাল্পের লাইভ-রিলোড, সিএসএস প্রি প্রসেসর এবং মিনিফাই প্যাকেজ গুলো নিয়ে আলোচনা করার ইচ্ছা থাকলো।

8

কিভাবে জিও-ডিএনএস ব্যবহার করে ওয়েব কনটেন্ট দ্রুত সার্ভ করবেন

ওয়েবসাইটের কনটেন্ট দ্রুত ভিজিটর দের কাছে সার্ভ করার জন্য বা লোকালাইজড কনটেন্ট সহজে দেখানোর জন্য জিও-ডিএনএস হতে পারে একটা চমৎকার পদ্ধতি। জিও ডিনএস ব্যবহারের মাধ্যমে আপনি ভিজিটরের লোকেশনের উপর ভিত্তি করে ওয়েবসাইট ভিজিটরের কাছাকাছি এলাকায় অবস্থিত কোন সার্ভার থেকে লোড করাতে পারেন। ধরুন আপনি আপনার সার্ভার হোস্ট করেছেন ইউএসএ তে। এখন ইউএস এর ভিজিটর রা সাইট অনেক দ্রুত লোড হতে দেখবে কারন সার্ভার তাদের এলাকায় অবস্থিত। কিন্তু এশিয়া থেকে যদি কেউ আপনার সাইট ভিজিট করে তারা কিন্তু আপনার সাইট দ্রুত দেখতে পাবে না, কারন ইউএস থেকে এশিয়ার মাঝে রয়েছে বিশাল ল্যাটেন্সি। জিওডিএনএস ব্যবহার করে আপনি দুইটি সার্ভার হোস্ট করতে পারেন ইউএস এবং এসিয়ান ভিজিটর দের জন্য। এটা করলে ইউএস থেকে ভিজিট করার সময় সাইট লোড হবে ইউএস সার্ভার থেকে, এশিয়া থেকে ভিজিট করার সময় সাইট লোড হবে এশিয়ান সার্ভার থেকে। ফলে যেখান থেকেই ভিজিট করা হোক না কেন, আপনার সাইটের লোডিং স্পিডের ব্যাপারে ভিজিটর রা আগের চেয়ে অনেক ভালো ফিল করবে। এছাড়াও আপনি লোকালাইজেশনের কাজেও এটা ব্যবহার করতে পারেন, যেমন ইউএস ভিজিটর দের কাছে সাইটের ইংরেজী ভার্সন টা দেখালেন আর বাংলাদেশী ইউজার দের কাছে সাইটের বাংলা ভার্সন দেখালেন :)

আজকের এই আর্টিকেলে আমি আলোচনা করব যে কিভাবে এই জিওডিএনএস সিস্টেম ব্যবহার করতে হয়। আশাকরি এই আর্টিকেল পরার পর অনেকের কাছেই বিষয়টি ক্লিয়ার হয়ে যাবে। পাশাপাশি আপনারা বুঝতে পারবেন সিডিএন বা কনটেন্ট ডেলিভারী নেটওয়ার্ক গুলো কিভাবে কাজ করে।

যাই হোক, জিওডিএনএস এর সুবিধা নিতে হলে আপনার ডোমেইন অবশ্যই জিওডিএনএস সুবিধা আছে এমন ডিএনএস সার্ভারে হোস্ট করতে হবে। জিওডিএনএস এর জন্য রেজ-ফোর বা Rage4 বেশ ভালো একটি ডিএনএস সার্ভিস। আপনাকে প্রথমেই http://rage4.com এ গিয়ে রেজিস্টার করে নিতে হবে। মাসে প্রতিটি ডোমেইনের জন্য ২৫০,০০০ ইমপ্রেসন পুরো ফ্রি। সুতরাং এটা ব্যবহার করতে হলে আপনাকে শুরুতেই কোন কিছু পে করতে হচ্ছে না। রেজিস্টার করার পরে আপনার ডোমেইনের নেম সার্ভার পরিবর্তন করে ফেলুন Rage4 এর নেমসার্ভার দিয়ে। রেজ-ফোরের নেমসার্ভার দুটো হল

  • ns1.r4ns.com
  • ns2.r4ns.com

ডোমেইনের নেম সার্ভার পরিবর্তন করলে সেটা রিজলভ হতে বেশ কিছুক্ষন সময় নিতে পারে। সুতরাং আপনি মাঝে মাঝে whois কমান্ড দিয়ে চেক করে নিতে পারেন যে আপনার ডোমেইন এর নেমসার্ভারের পরিবর্তন টা রিজলভড হয়েছে কিনা। রিজলভ হয়ে গেলে এবার আমাদের জিওডিএনএস তৈরী করার পালা। আমি ধরে নিলাম যে আপনার ডোমাইন এর নাম abcd.com। এবার Rage4.com এ এসে লগইন করে আপনার ড্যাশবোর্ডে আসুন এবং রেগুলার ডোমেইন সেকশন থেকে আপনার ডোমেইন টি যোগ করে নিন।

Screen Shot 2014-07-03 at 7.46.52 PM

ডোমেইন যোগ করা হয়ে গেলে আপনার ড্যাশবোর্ডে আপনার ডোমেইনের নামের পাশে ম্যানেজ বাটনে ক্লিক করে আপনার ডোমেইন এর ডিএনএস প্যানেলে আসুন। এবার নিচে দেখতে পাবেন বেশ কয়েকটা সেকশন রয়েছে যেমন A Records, CNAME Records, MX Records ইত্যাদি। জিও-ডিএনএস এর জন্য আমাদের প্রয়োজন A রেকর্ড তৈরী করা। সুতরাং A Records সেকশনে NEW RECORD এ ক্লিক করুন। নিচের মত একটা স্ক্রিন ওপেন হবে।

Screen Shot 2014-07-03 at 7.53.50 PM

Record Name ফিল্ডে আপনি চাইলে আপনার ইচ্ছামত সাবডোমেইনের নাম দিতে পারেন, কিংবা মূল ডোমেইনের জন্য যা আছে, অর্থাৎ ডোমেইনের নাম যা আছে সেটাই রেখে দিতে পারেন। মনে করি যে আমরা এই রেকর্ডটা আমাদের এশিয়ান সার্ভারের জন্য তৈরী করব যার আইপি অ্যাড্রেস হল x.x.x.x।  এবার Record Value ফিল্ডে সেই আইপি অ্যাড্রেসটি দিন। নিচের জিওডিএনএস সেকশনে GeoDNS Region/Mode ড্রপডাউন থেকে Asia সিলেক্ট করে দিন।

Screen Shot 2014-07-03 at 7.58.22 PM

এবার আপনার ডিএনএস প্যানেলে দেখবেন নিচের মত করে A Record টি যোগ হয়ে গিয়েছে। এবার নতুন A Record না তৈরী করে, আপনার আগে তৈরী করা রেকর্ডটির পাশে ADD বাটনে ক্লিক করুন। এবার ঠিক আগের মতই আরেকটি রেকর্ড যোগ করুন, শুধু রেকর্ড ভ্যালুর জায়গায় আপনার ইউএস সার্ভারের আইপি দিন এবং GeoDNS Region/mode ড্রপডাউন থেকে Americas সিলেক্ট করুন নিচের ছবির মত

Screen Shot 2014-07-03 at 8.03.35 PM

ব্যাস, আমাদের জিও-ডিএনএস কনফিগার করার কাজ শেষ। এখন থেকে ইউএস ভিজিটর রা abcd.com ভিজিট করলে আপনার সাইট সার্ভ হবে y.y.y.y আইপি অ্যাড্রেস ওয়ালা সার্ভার থেকে, আর এশিয়ান ভিজিটর দের জন্য x.x.x.x আইপি অ্যাড্রেস ওয়ালা সার্ভার থেকে :) পুরো বিষয়টা কিন্তু একেবারেই কঠিন নয়, বরং অনেক অনেক সহজ – তাই না?

যাদের মনে কৌতুহল যে রেজ-ফোর কিভাবে এই কাজ টা করে তাদের জন্য বলছি, Rage4.com তাদের এই ডিএনএস সার্ভারের জন্য PowerDNS নামে একটা ওপেন সোর্স অ্যাপ্লিকেশন এর মডিফায়েড ভার্সন ব্যবহার করে।

আশাকরি আর্টিকেল টা আপনার ভালো লেগেছে। তাও কমেন্ট করে জানালে খুশি হব। পাশাপাশি কোন প্রশ্ন থাকলে আমাকে টুইটারে জিজ্ঞেস করতে পারেন। আমার টুইটার আইডি হল @hasin

ধন্যবাদ সবাইকে

8

ভ্যাগর‍্যান্ট দিয়ে নিজের ইচ্ছামত ভার্চুয়াল সার্ভার কনফিগার ও ব্যবহার করা

Screen Shot 2014-07-02 at 7.01.57 PM

আমরা যারা বিভিন্ন ডেভেলপমেন্ট এনভায়রনমেন্ট নিয়ে কাজ করি তাদের অনেক সময়েই এমন টুল ইনস্টল করা লাগে যেটা একটার সাথে আরেকটা কনফ্লিক্ট করে। পিএইচপিএর জন্য টিউন করা একটা মেশিনে আবার রুবি বা পাইথন সেটআপ করে ওয়েবসার্ভার কনফিগার করতে গেলে অনেক সময় এটা কাজ করা বন্ধ করে দিতে পারে বা ওটার কোন একটা লাইব্রেরীর সাথে এর কোন লাইব্রেরী ঝামেলা করতে পারে। আবার দুই তিন ভার্সন একসাথে চালাতে গেলেও মুশকিল হয়। অথবা হয়তো চাইছেন দুই বা তিনটা ভার্চুয়াল মেশিন তৈরী করে মাইএসকিউএল এর রেপ্লিকেশন/শার্ডিং প্র‍্য্যাকটিস করতে। এইসব সমস্যা খুব সহজেই সমাধান করা যায় ভার্চুয়াল বক্স এবং ভ্যাগর‍্য্যান্ট ইনস্টল করে। ভ্যাগর‍্যান্ট মূলত ভার্চুয়াল বক্স এর একটা র‍্য্যাপার টুল হিসেবে কাজ করে ভার্চুয়াল ডেভেলপমেন্ট এনভায়রনমেন্ট তৈরী করার জন্য। এর মাধ্যমে আমরা একদম ঝামেলা ছাড়াই আমাদের পছন্দের অপারেটিং সিস্টেম (মূলত লিনাক্স বেজড) ব্যবহার করে ভার্চুয়াল সার্ভার বানাতে পারি, সেগুলোতে সফটওয়্যার প্যাকেজ ইনস্টল করতে পারি। এভাবে আমরা আমাদের প্রয়োজনমত একাদিক ভার্চুয়াল এনভায়রনমেন্ট তৈরী করে রাখতে পারি এবং যখন যেটাতে প্রয়োজন সেটাতে লগইন করে কাজ করতে পারি, কাজ না থাকলে শাটডাউনও করে রাখতে পারি। পুরো বিষয়টিই অনেকটা ভিপিএস সার্ভার হোস্ট করার মত :)

আজকে এই আর্টিকেলে আমরা দেখবো কিভাবে আমরা ভ্যাগর‍্যান্ট এবং ভার্চুয়াল বক্স নিয়ে কাজ করতে পারি। এর জন্য আমাদের যা যা লাগবে তা হল

১. ভার্চুয়াল বক্স – যেটা আমরা ডাউনলোড করে নিতে পারি https://www.virtualbox.org/wiki/Downloads এখান থেকে
২. ভ্যাগর‍্যান্ট – যা ডাউনলোড করা যাবে http://www.vagrantup.com/downloads.html থেকে
৩. একটা লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম টেমপ্লেট

আপনি http://vagrantbox.es এখানে গেলে অনেক টেমপ্লেট দেখতে পাবেন। নামানোর সময় অবশ্যই খেয়াল রাখবেন ঠিক টেমপ্লেটটি যেন বাছাই করেন। ভার্চুয়ালাইজেশন টুল হিসেবে যেটার পাশে VirtualBox লেখা আছে সেগুলো থেকে নামাবেন। আপনার সুবিধার জন্য আমি প্রচলিত কয়েকটি টেমপ্লেটের ডাউনলোড লিংক দিয়ে দিলাম

আমি নিজে ডেবিয়ান ৭.২ এর ৬৪ বিট টেমপ্লেট টি ব্যবহার করি। এই আর্টিকেলেও আমি সেটাই ব্যবহার করে উদাহরণগুলো দেখাবো। তবে পুরো বিষয়টি একই রকম, যেই টেমপ্লেটই ব্যবহার করে থাকেন না কেন :)

আপনি যদি প্রথম লিংকটি থেকে ডেবিয়ান ৭.২ টেমপ্লেটটি নামিয়ে থাকেন তাহলে দেখবেন যে debian-7.2.0.box নামে একটা ফাইল সেভ হয়েছে। এটার সাইজ তেমন বেশী না, মাত্র ৩১০ মেগাবাইট। এবার আপনি প্রথমে ভার্চুয়ালবক্স ইনস্টল করুন এবং তারপর ভ্যাগর‍্য্যান্ট ইনস্টল করুন। ইনস্টলেশন টা একদম স্ট্রেইট ফরোয়ার্ড – শুধু নেক্সট নেক্সট ক্লিক করে গেলেই হয়ে যায়। ইনস্টলেশন হয়ে গেলে এবার আমাদের ডাউনলোড করা ডেবিয়ান টেমপ্লেটটি ভ্যাগর‍্যান্টে ইমপোর্ট করতে হবে। এজন্য আপনার টার্মিনাল ওপেন করুন এবং নিচের মত করে কমান্ড দিন

vagrant box add wheezy64 debian-7.2.0.box

Screen Shot 2014-07-02 at 6.08.09 PM

এখানে নাম হিসেবে আমি দিয়েছি wheezy64, আপনি আপনার যা ইচ্ছা দিতে পারেন। তবে আমি সাজেস্ট করব প্রাসঙ্গিক নাম দেয়ার। এবার আমরা ভার্চুয়াল সার্ভার তৈরী করব আর সেজন্য কোথাও একটা নতুন ফোল্ডার তৈরী করুন। ধরে নিলাম আপনি ফোল্ডার তৈরি করেছেন যার পাথ হল /path/to/my/folder

এবার আপনার টার্মিনাল ওপেন করে নিচের কমান্ড গুলো দিন

cd /path/to/my/folder
vagrant init wheezy64

Screen Shot 2014-07-02 at 6.12.56 PM

এবার নিচের কমান্ড দিন

vagrant up

কিছুক্ষনের মাঝেই আপনার ভার্চুয়াল সার্ভার রেডী হয়ে যাবে :)

Screen Shot 2014-07-02 at 6.16.24 PM

ব্যাস, আপনার সার্ভার রেডী। চলুন এখন লগইন করে দেখা যাক এই সার্ভারে। এজন্য এই ফোল্ডারে থাকা অবস্থায়ই নিচের কমান্ড টি দিন

vagrant ssh

Screen Shot 2014-07-02 at 6.18.14 PM

আপনি আপনার সার্ভারে লগইন হয়ে গেছেন। মজা না? একদম নিমেষেই নিজের একটা আইসোলেটেড সার্ভার। চলুন দেখি এতে রিসোর্সের অ্যালোকেশন কেমন

Screen Shot 2014-07-02 at 6.21.25 PM

উপরের ছবিটা থেকে আমরা দেখতে পারছি যে আমাদের এই সার্ভারে ২৫৬ মেগাবাইট র‍্য্যাম এবং হার্ডডিস্কে ১০ গিগাবাইট স্পেস অ্যালোকেটেড হয়েছে। আপনি এখন এখানে apt-get দিয়ে নিজের ইচ্ছামত প্রয়োজনীয় প্যাকেজ ইনস্টল করে নিতে পারেন। এছাড়াও আমরা চাইলেই এসব রিসোর্স অ্যালোকেশন বাড়াতে পারি। হার্ডডিস্কের স্পেস বাড়ানোর দরকার নাই কারন এটা প্রয়োজনের উপর ভিত্তি করে নিজে থেকে এক্সপ্যান্ড করবে। চলুন আমরা দেখি কিভাবে মেমোরী বাড়াবো এবং কিভাবে আমাদের এই সার্ভারে একটা স্ট্যাটিক আইপি অ্যাড্রেস অ্যাসাইন করবো। এজন্য আগে আমাদের দরকার এই মেশিন থেকে লগআউট করে আমরা যেই ফোল্ডারে ছিলাম সেখানে যাওয়া।

ভ্যাগর‍্য্যান্ট এর যেকোন ভার্চুয়াল এনভায়রনমেন্ট থেকে লগ আউট করতে লিখবেন exit, আর ভার্চুয়াল মেশিন কে স্লিপ মোডে নিতে লগ আউট করার পর লিখবেন vagrant suspend, আর শাটডাউন করাতে চাইলে লগ আউট করার পর লিখবেন vagrant halt ।

আমরা আপাতত লগ আউট করি exit লিখে

Screen Shot 2014-07-02 at 6.28.19 PM

এবার এই ফোল্ডারে আপনি দেখবেন Vagrantfile নামে একটা ফাইল রয়েছে। এই ফাইলটি ওপেন করে “IP” দিয়ে সার্চ করুন, দেখবেন নিচের মত একটা লাইন কমেন্ট করা আছে # দিয়ে। এই লাইনটি আন কমেন্ট করুন # মুছে দিয়ে। উল্লেখ্য যে এখানে আপনার পছন্দ মত যেকোন প্রাইভেট আইপি দিতে পারেন

config.vm.network “private_network”, ip: “192.168.33.10”

ফাইলটি সেভ করে টার্মিনালে কমান্ড দিন vagrant reload এবং পিং করে দেখুন যে মেশিনে আপনার অ্যাসাইন করা আইপি অ্যাড্রেসটি রিজলভ হয়েছে কিনা। আমার মেশিনে আমি আইপি অ্যাড্রেস দিয়েছিলাম ১৯২.১৬৮.৩৩.১১ – বাই দ্য ওয়ে, আপনি আইপি অ্যাড্রেস অ্যাসাইন করার পর আপনার ভার্চুয়াল মেশিনে লগইন করে অ্যাপাচি/এনজিনএক্স সেটআপ করার পরে আপনার ব্রাউজারের অ্যাড্রেস বারে সেই আইপি অ্যাড্রেস দিলেই দেখবেন আপনার ভার্চুয়াল মেশিনের অ্যাপাচি/এনজিনএক্সের ডিফল্ট স্ক্রিন। কত সহজ পুরো বিষয়টিই, তাই না?

Screen Shot 2014-07-02 at 6.34.40 PM

ঠিক একই ভাবে মেমোরী অ্যালোকেশন বাড়াতে চাইলে Vagrantfile এ নিচের লাইন টি খুঁজে বের করুন আর আনকমেন্ট করে ১০২৪ এর জায়গায় নিজের পছন্দ মত ভ্যালু বসিয়ে vagrant reload করুন

vb.customize ["modifyvm", :id, "--memory", "1024"]

এভাবে আপনি আবার নতুন ফোল্ডার তৈরী করে সেটাতে পুরো প্রসেস রিপিট করে যত ইচ্ছা তত আইসোলেটেড ভার্চুয়াল সার্ভার মেশিন বানাতে পারবেন এবং নিজের মত কনফিগার করে আপনার প্রয়োজনীয় ডেভেলপমেন্ট টুলস সেটআপ করে রাখতে পারবেন। কোনটা কোনটার সাথে কনফ্লিক্ট করবে না, উপরন্তু আপনি আপনার পছন্দ মত অপারেটিং সিস্টেম টেমপ্লেট ও বাছাই করে সেগুলো চালাতে পারবেন :)

আপনার প্রয়োজন শেষ হয়ে গেলে যেকোন ভার্চুয়াল সার্ভারকে ডেস্ট্রয় করে দিতে পারেন। সেক্ষেত্রে সার্ভারটি আপনার মেশিন থেকে ডিলেট হয়ে যাবে। আপনি যদি এই সার্ভারে কোন প্রয়োজনীয় ফাইল তৈরী করে থাকেন, তাহলে ডেস্ট্রয় করার আগে তার ব্যাকআপ নিতে ভুলবেন না

vagrant destroy

আশাকরি ভ্যাগর‍্যান্ট নিয়ে এই আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগেছে। তারপরেও কমেন্টে জানালে খুশি হব। আর কোন প্রশ্ন থাকলে আমাকে টুইটারে জিজ্ঞেস করতে পারেন যেকোন সময়, আমার টুইটার আইডি হল @hasin :)

ধন্যবাদ সবাইকে

0

Upgrading PHP to 5.5 in a CentOS 6 server with Vesta CP

Vesta CP comes with PHP 5.4 by default. If you want to upgrade it to 5.5, follow these steps

1. Stop Apache and Remove current PHP

service httpd stop
yum -y remove php

2. Add remi repository

#For 32 Bit OS
wget http://dl.fedoraproject.org/pub/epel/6/i386/epel-release-6-8.noarch.rpm
wget http://rpms.famillecollet.com/enterprise/remi-release-6.rpm
rpm -Uvh remi-release-6*.rpm epel-release-6*.rpm 

#For 64Bit OS
wget http://dl.fedoraproject.org/pub/epel/6/x86_64/epel-release-6-8.noarch.rpm
wget http://rpms.famillecollet.com/enterprise/remi-release-6.rpm
rpm -Uvh remi-release-6*.rpm epel-release-6*.rpm

3. Enable Remi Repository
open /etc/yum.repos.d/remi.repo and add 1 beside enabled for both [remi] and [remi-php55], as shown in the screenshot
Screen Shot 2014-06-03 at 8.44.47 PM

4. Install PHP 5.5

yum -y install php php-bcmath php-cli php-common php-gd php-imap php-mbstring php-mcrypt php-mysql php-pdo php-soap php-tidy php-xml php-xmlrpc php-pecl-apc phpMyAdmin roundcubemail php-opcache php-xdebug

Step 5: Cleanup, linking and finishing

mv -f /etc/php.ini.rpmsave /etc/php.ini
mv -f /etc/roundcubemail/db.inc.php.rpmsave /etc/roundcubemail/db.inc.php
mv -f /etc/roundcubemail/main.inc.php.rpmsave /etc/roundcubemail/main.inc.php
mv -f /etc/phpMyAdmin/config.inc.php.rpmsave /etc/phpMyAdmin/config.inc.php
mv -f /etc/httpd/conf.d/roundcubemail.conf.rpmsave /etc/httpd/conf.d/roundcubemail.conf
mv -f /etc/httpd/conf.d/phpMyAdmin.conf.rpmsave /etc/httpd/conf.d/phpMyAdmin.conf
service httpd start

And you’re done :) Enjoy!

0

Remote deploy your project using git’s server side hooks

6Icr9fARMmTjTHqTzK8z_DSC_0123
Git hooks are very useful to perform tasks during different states of the codebase. Sometime you can cancel your commit if jshint throws some error on your javascript files, or you can deploy your current working directory somewhere in the server. In this article we will be discussing how to deploy code using git’s server side hooks.

Step 1: Add a git repository somewhere in your server
Create a blank git repository somewhere in your server. For example, see the following code

cd /path/to/your/folder
git --bare init myrepo.git

You will see that a new directory named myrepo.git has been created. Inside that folder you will find a few other folders named “hooks”, “branches” and so on. However, sometime, this command may give you unexpected result by creating those child folders outside the myrepo.git. In that case the following commands are helpful

cd /path/to/your/folder
mkdir myrepo.git
cd myrepo.git
git --bare init

Now everything will be inside this myrepo.git folder. Lets move to the next step.

Step 2: Add this newly created git repo as a remote to your current project
This part is easy, just follow these commands from inside your current project. We are going to add the repository we created in step 1 as a remote named “server”

cd /your/current/project/directory
git remote add server ssh://user@serveraddress/path/to/your/folder/myrepo.git

Once added, you can push to this git repo like you did with origin, like

git commit -am "Some Commit Message"
git push server master 
# (or simply git push server)

You may want to add your local machine’s public key in the ~/.ssh/authorized_keys file so that you won’t have to input username and password every time you push your code.

Step 3: Add the git hook
To deploy your code after a push, we need to deal with post-receive hook. Log into your remote server and go to the repository that we had created in step 1 (i.e /path/to/your/folder/myrepo.git). Now go to the hooks directory and create a file named post-receive. If you want to deploy your code to a directory accessible by web server, for example /usr/share/nginx/www/myproject then the code of post-receive will be like this

#!/bin/bash
export GIT_WORK_TREE=/usr/share/nginx/www/myproject
git checkout -f

The code above will checkout current HEAD of master branch inside the directory specified by GIT_WORK_TREE. But sometime, you may have another project which is cloned from your git repo. In those directories, instead of checking out, we will do a git pull. So our post-receive file’s code will be like this

#!/bin/bash
cd /usr/share/nginx/www/myproject
unset GIT_DIR
git pull

remember to unset GIT_DIR which is very important for a git pull from post-receive hook.

Step 4: Give the executable permission to this post-receive hook
In this last step, just give executable permission to this post-receive file and you’re done

chmod +x /path/to/your/folder/myrepo.git/hooks/post-receive

That’s mainly it :) Now whenever you push your code from local machine to this remote git repository, your code will be deployed instantly.

I hope you’ve enjoyed this article and I would love to hear your comments.

0

সহজ বাংলায় ডিজাইন প্যাটার্ন – সিংগেলটন (Singleton)

singleton

এই সিরিজে এর আগে আমরা আলোচনা করেছি ফ্যাসাড এবং ফ্যাক্টরি প্যাটার্ন নিয়ে, আর আজ আলোচনা করব সিংগেলটন প্যাটার্ন নিয়ে।

অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিংয়ে বহুল ব্যবহৃত (এবং বহুল সমালোচিত) ডিজাইন প্যাটার্নগুলোর মাঝে একটি হল সিংগেলটন প্যাটার্ন। এই প্যাটার্নের লক্ষ্য হল কোন একটি অবজেক্ট বার বার নতুন ভাবে তৈরী না করে একবার তৈরী করে সেই ইন্সট্যান্সকেই বার বার ব্যবহার করা। যদিও এই প্যাটার্নের উদ্দেশ্য রিসোর্সের সাশ্রয় করা, এবং অবজেক্ট কে রিইউজ করা কিন্তু একই সাথে এটা কিছু জটিলতাও নিয়ে আসে। যাই হোক – সেগুলো নিয়ে আমরা পরে দেখব, আপাতত দেখি সিংগেলটন প্যাটার্ন আসলে কি এবং কিভাবে এটা ব্যবহৃত হয়।

আমরা একটা বাস্তব উদাহরন দিয়ে শুরু করি। মনে করেন যে টেবিলে আপনারা চারজন (আপনি, আপনার বোন, আপনার বাবা এবং মা) খাবার খেতে বসেছেন, পাশে বাবুর্চি দাঁড়িয়ে আপনাদের এটা ওটা এগিয়ে দিচ্ছে। এখন আপনি একটি থালা চাইলেন, বাবুর্চি আপনাকে একটা পরিষ্কার থালা এগিয়ে দিল। একই ভাবে আপনার বাবা, মা এবং বোন থালা চাইলে বাবুর্চি তাদেরকেও যার যার থালা দিয়ে দিবে। এখানে খেয়াল করবেন যে বাবুর্চি কিন্তু আপনার থালা নিয়ে আপনার বোনকে দিচ্ছে না। সবাই যে যার থালা পেয়েছে। এখন আপনি ভাতের গামলা চাইলেন – বাবুর্চি আপনাকে টেবিলে রাখা একমাত্র ভাতের গামলাটি এগিয়ে দিবে। আপনার বোনও যদি এখন ভাতের গামলা চায় তাহলে বাবুর্চি কিন্তু তাঁকে নতুন একটা ভাতের গামলা না দিয়ে সেই একই গামলা তাঁর দিকে এগিয়ে দিবে। তাহলে বিষয়টা কি হল? একই ভাতের গামলা বার বার রিইউজ হচ্ছে, সবাইকে যার যার থালার মত নতুন নতুন ভাতের গামলা দেয়া হচ্ছে না – এই পুরো ঘটনাটাই অনেকটা সিংগেলটন প্যাটার্ন এর মত, যখন অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিংয়ে প্রয়োগ করবেন।

প্রোগ্রামিংয়ের সময় সিংগেলটন প্যাটার্ন অনেকভাবে অ্যাপ্লাই করা যায়, যেমন নিচের কোডে একটি কমন কনটেইনার অবজেক্ট সবাইকে আরেকটি অবজেক্ট সিংগেলটন প্যাটার্নের মাধ্যমে রিটার্ন করছে, বার বার নতুন অবজেক্ট তৈরী না করে। আপনারা এই কোড টি দেখতে পারেন, পিএইচপি তে লেখা https://gist.github.com/hasinhayder/7487898b7d38aefe3179

এই কোডে RentACar একটি কনটেইনার অবজেক্ট যে কিনা দুইজন প্যাসেঞ্জার কে একই কার দিচ্ছে (ধরে নেন যে একজন প্যাসেঞ্জার কে নামিয়ে দিয়ে আরেকজন প্যাসেঞ্জার কে একই কার পাঠিয়ে দিয়েছে, হে হে)। কোড রান করালে দেখবেন দুজন প্যাসেঞ্জারই যে গাড়িটি ব্যবহার করেছে তার নাম্বার প্লেট একই :) আমি খুব সহজে বোঝানোর জন্য স্ট্যাটিক অবজেক্ট দিয়ে উদাহরন টি করে দেখালাম আর কি

সিংগেলটন প্যাটার্নের সুবিধা যেমন আছে, তেমন অসুবিধাও আছে বেশ কিছু। তবে সেগুলো নিয়ে আমরা পরে আলোচনা করব একদিন :) আশাকরি আপনারা বুঝতে পেরেছেন সিংগেলটন প্যাটার্ন কি জিনিস এবং এটা কিভাবে ব্যবহার করা হয়। আমি আমার মত করে বোঝানোর চেষ্টা করেছি, আমার জানায় ভুল থাকতে পারে – সেক্ষেত্রে জানালে খুশি হব। আর এই সিরিজটি আপনাদের কাজে লাগলেই আমার ভালো লাগবে :) আপনার প্রোগ্রামিংয়ে শুভকামনা থাকল।

3

সহজ বাংলায় ডিজাইন প্যাটার্ন – ফ্যাক্টরি (Factory)

steering2

এর আগেরবার আমরা ফ্যাসাড ডিজাইন প্যাটার্ন নিয়ে আলোচনা করেছিলাম, আজকে তারই ধারাবাহিকতায় আলোচনা করব ফ্যাক্টরি নামের এই ডিজাইন প্যাটার্ন নিয়ে। ফ্যাক্টরি বা কারখানায় কি হয় বলেন তো? কোন একটা বা একাধিক রকমের জিনিসপত্র তৈরী করা হয়। আপনি যদি কখনো সাবানের কারখানায় যান তাহলে আপনি কি চাইবেন? “সাবান” চাইবেন, তাই না? – কারখানায় আপনাকে তৈরী করা সাবান দিয়ে দিবে যা আপনি তখনই ব্যবহার করতে পারবেন। এখন যদি সাবানের কারখানা বা ফ্যাক্টরি না থাকত তাহলে আপনাকে কত কষ্ট করে বাসায় বসে বসে চর্বি জ্বাল দিয়ে তারপর গ্লিসারিন মিশিয়ে সাবান বানাতে হত। কিন্তু সেটা কষ্টকর বলে আমরা তা কখনোই করি না। আমরা কারখানায় থেকে সরাসরি ব্যবহারযোগ্য তৈরী পন্য পেয়ে যাই – আমাদেরকে জানতে বা বুঝতে হয় না যে পন্য/অবজেক্ট টি কিভাবে বা কি প্রক্রিয়ায় তৈরী হল।

ঠিক একইভাবে অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিংয়ে যখন কোন একটি অবজেক্টের মেথড কল করে আরেকটি অবজেক্ট পাওয়া যায়, সেটাকে বলে ফ্যাক্টরি অবজেক্ট আর এই ঘটনাকেই বলে ফ্যাক্টরি প্যাটার্ন। আপনারা ডেটাবেজ নিয়ে কাজ করতে গেলে (বিশেষ করে ওআরএম এর ক্ষেত্রে) অনেক সময় নিচের মত করে কল করেন, আর না করলেও ধরে নেন যে কল করেন – কারন এরকম মেথড আপনারা প্রায় সবসময় ব্যবহার করছেন

$db = new DbManager();
$userTable = $db->getTable("users");
//now $userTable object can interact with 'users' table in the db, like $userTable->insert()

এখানে DbManager একটা ফ্যাক্টরি ক্লাস যেটা তার getTable() ফ্যাক্টরি মেথডের সাহায্যে একটা টেবিল অবজেক্ট তৈরী করে রিটার্ন করছে যার মাধ্যমে আপনি ডেটাবেজের টেবিল গুলোর সাথে কাজ করতে পারছেন, কিন্তু আপনাকে জানতে হচ্ছে না যে এই টেবিল অবজেক্ট টা কিভাবে তৈরী হয়েছে । খেয়াল করলে দেখবেন আপনার প্রজেক্টে এরকম অসংখ্য মেথড কল করা আছে যেখানে একটা অবজেক্ট এর মেথড কল করে আরেকটা নতুন অবজেক্ট পাওয়া যায়। এই পুরো ঘটনাটাকেই অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিংয়ে বলে ফ্যাক্টরি ডিজাইন প্যাটার্ন :)

ডিজাইন প্যাটার্ন খুব কঠিন কিছু নয়, জাস্ট বুঝতে হয় আর জানতে হয়। এমনকি আমরা না জেনেই অনেক ডিজাইন প্যাটার্ন আমাদের কোডে ব্যবহার করি প্রতিনিয়ত। আশাকরি আপনাদের ভালো লেগেছে এই আর্টিকেলটি। আমি আমার মত করে বোঝানোর চেষ্টা করেছি, আমার জানায় ভুল থাকতে পারে – সেক্ষেত্রে আমাকে জানালে খুশি হব। আপনার জন্য শুভকামনা রইল।

3

ডেভেলপমেন্টের সময় গিট ব্যবহারের সহজ ওয়ার্ক-ফ্লো

আজকালকার দিনে ভার্সন কন্ট্রোল টুল বা ভিসিএস ব্যবহার করে না এরকম টিমের দেখা পাওয়া একটু মুশকিল। ভার্সন কন্ট্রোল টুল এত উপকারী যে দেখা যায় বেশীর ভাগ ডেভেলপার একা কাজ করলেও বা সিংগেল ম্যান প্রজেক্ট হলেও সোর্স কোড সফলভাবে ম্যানেজ করার জন্য কোন না কোন টুল ব্যবহার করে থাকে। বর্তমানে জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে ভার্সন কন্ট্রোল টুল গুলোর মাঝে গিট (git), সাবভার্সন (svn), মারকুরিয়াল, বাজার ইত্যাদি বেশি প্রচলিত। কেউ কেউ মাইক্রোসফটের ভিজ্যুয়াল সোর্স সেফ ও ব্যবহার করে থাকে। আজকের এই আর্টিকেলে আমি ভার্সন কন্ট্রোল টুল কেন ব্যবহার করা লাগে বা সুবিধা কি সেগুলো নিয়ে আলোচনা না করে বরং একটা স্পেসিফিক বিষয় নিয়ে বলবো, আর সেটা হল ডেভেলপমেন্টের সময় গিট ব্যবহার করে কিভাবে একটা নির্দিষ্ট ওয়ার্কফ্লো ফলো করে আমাদের ডেভেলপমেন্ট সাইকেল আরও সহজ করতে পারি বা আরও প্রোডাক্টিভ ভাবে সোর্স কোড ম্যানেজ করতে পারি।

০. আমরা ধরে নেই আমরা একটা ছোট দল, যেখানে নদু_ডেভ, যদু_ডেভ এবং গেদু_ডেভ ডেভেলপার হিসেবে কাজ করছে। এই দলের লিড বা কোড মেইনটেইনার হিসেবে কাজ করছে হালুম_লিড।
১. প্রজেক্টে গিট ব্যবহার করা হচ্ছে শুরু থেকেই। গিটে develop এবং master নামে দুটো ব্রাঞ্চ আছে
২. নদু, গেদু এবং যদু প্রজেক্টের develop ব্রাঞ্চ নিয়ে কাজ করছে। তাদের যার যার টাস্ক তারা এই develop ব্রাঞ্চে কমিট (git commit) দিবে এবং পুশ করবে। এছাড়াও তাদের নিজেদের কোড অন্যদের সাথে হালনাগাদ রাখার জন্য তারা সবসময় develop ব্রাঞ্চ থেকে পুল (git pull) নিবে। পুশ (git push) দেয়ার সময়ে তারা খেয়াল রাখবে যেন ব্রোকেন বা ইন-কমপ্লিট কোন কোড পুশ না হয়ে যায়।
৩. এখন মনে করি হালুম_লিড প্রজেক্টের একটা ফিচার নিয়ে নদুকে কাজ করতে দিয়েছে, ফিচার টার নাম “সহজ_ফিচার”। একই সাথে গেদুকে দেয়া হয়েছে অপেক্ষাকৃত ঝামেলার “মাঝারী_ফিচার”। যদুও পেয়েছে “ঝামেলা_ফিচার” তার ভাগে।
৪. যেহেতু অপেক্ষাকৃত সহজ এবং ছোট কাজ, নদু সরাসরি develop ব্রাঞ্চেই কাজ করতে পারে। কাজ শেষে সে কমিট এবং পুশ করবে develop ব্রাঞ্চে।
৫. একটু সময় বেশী লাগবে এবং পরীক্ষা নিরিক্ষা বেশী করা লাগবে দেখে গেদু তার মেশিনে develop ব্রাঞ্চ থেকে নতুন একটা ব্রাঞ্চ করে নিবে – ধরে নেই তার নাম “মাঝারী_ব্রাঞ্চ”। যদুও একই ভাবে কাজ করার সময় সরাসরি develop ব্রাঞ্চে কাজ না করে develop ব্রাঞ্চ থেকে নিজের মেশিনে একটা নতুন ব্রাঞ্চ করে নিবে “ঝামেলা_ব্রাঞ্চ” নামে। এই দুটি ব্রাঞ্চে তারা কমিট দিবে কিন্তু তারা কেউ এই ব্রাঞ্চদুটো পুশ করবে না।
৬. গেদুর কাজ হয়ে গেলে সে develop ব্রাঞ্চের সাথে তার মাঝারী_ব্রাঞ্চ মার্জ (git merge) করে দিবে। এক্ষেত্রে মার্জ করার আগে সে ড্রাই রান করে দেখে নিতে পারে যে কোন কনফ্লিক্ট হতে পারে কিনা। মার্জ করার পরে কনফ্লিক্ট হলে সে কনফ্লিক্ট রিসলভ (conflict resolve) করে আবার develop ব্রাঞ্চ কমিট এবং পুশ দিবে।
৭. যদুও তার কাজ হয়ে গেলে সে তার ঝামেলা_ব্রাঞ্চ একই ভাবে ডেভেলপ ব্রাঞ্চের সাথে মার্জ করে দিবে।
৮. develop ব্রাঞ্চের সাথে সফল ভাবে মার্জ হয়ে গেলে যদু এবং গেদু তাদের লোকাল ব্রাঞ্চ দুটো ডিলেট করে দিবে, কারন সেগুলোর আর প্রয়োজন নেই
৯. হালুম_লিড এখন চেক করবে যে develop ব্রাঞ্চের সব কিছু ঠিক আছে কিনা। যদি ঠিক থাকে তাহলে সে develop ব্রাঞ্চ master ব্রাঞ্চের সাথে মার্জ করে দিবে। এই মাস্টার ব্রাঞ্চে মার্জ কখনোই নদু_ডেভ, গেদু_ডেভ বা যদু_ডেভ করবে না।
১০. প্রোডাকশন সার্ভারে ডেপ্লয় করার সময় এলে হালুম_লিড দেখবে যে master ব্রাঞ্চের সব কোড ঠিকমত টেস্ট (ইউনিট টেস্ট) পাশ করছে কিনা। যদি টেস্ট পাশের হার অ্যাক্সেপ্টেবল হয় তাহলে সে সার্ভারে কোড ডেপ্লয় করে দিবে

এই হল মোটামুটি গিট নিয়ে কাজের ওয়ার্ক-ফ্লো। ১০ নম্বর পয়েন্ট টা অবশ্য গিটের সাথে সম্পর্কিত না, তাও উল্লেখ করলাম আর কি

6

A helpful Twig extension – Fetch

twig

Inspired by Symfony’s twig extension to fetch output from external controllers and URL’s in their Twig subsystem, I wrote this small Twig function which you can use in your general twig templates. The main purpose of this extension is to fetch external URL (via GET or POST). You can also pass an arbitrary number of parameters which is helpful while fetching external URL via POST.

Here is the code of the Fetch extension.

To use this newly created extension, initialize your Twig loader in this way

//include the twig extension file first

$loader = new \Twig_Loader_Filesystem(__DIR__ . "/../app/twig"); //change accordingly
$twig = new \Twig_Environment($loader);
$twig->addExtension(new Fetch());
return $twig;

And then you can simply call it in your twig files in this way

{{ fetch("http://yourdomain.tld") }}

//or

{{ fetch("http://yourdomain.tld", {'param1':'value1','param2':'value2'}) }}

And you’ll notice that the output from the URL is now fetched and displayed in your twig output :)

Hope you enjoy this :)